Articles & Blog

চেঙ্গিস খান পৃথিবীর শাসনকর্তা

Sharing is caring!

১৯৯৫ সালের ৩১শে ডিসেম্বর আমেরিকার নেতৃস্হানীয় সংবাদপত্র ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ এবং টেলিভিশন নিউজ চ্যানেল সিএনএন গত এক হাজার বছরের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হিসাবে চেঙ্গিস খানকে “ম্যান অব দ্য মিলেনিয়াম” হিসাবে নির্বাচিত করে। আধুনিক ইতিহাসবিদরা মনে করেন তার দোষ ত্রুটির তুলনায় সাফল্যের পরিমাণ অনেক অনেক বেশী ছিলো। চেঙ্গীস খান ছিলেন পৃথিবীর সর্বকালের সর্ব্বৃহত অবিচ্ছিন্ন সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা।

প্রতিষ্ঠিত, পরাক্রম, সাহস এই সমস্ত কিছু জ্যোতিষ নিরিখে বিচার করতে হলে জন্ম কুষ্ঠি তৃতীয় ভাব থেকে বিচার করতে হয়। প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকে শুরু করে বর্তমানে প্রতিটা মানুষকে বেঁচে থাকার জন্য লড়াই করে যেতে হচ্ছে ক্রমাগত। ইংরেজীতে একটা কথা আছে
Survival of the fittest . Herbert Spencr এই কথাটি বলে গিয়েছিলে

ন। চলাই তো জীবন, থেমে যাওয়াই মরণ। তৃতীয় ভাব থেকে প্রকৃতির সাথে লড়াই করা, চলার পথ ঠিক করা এই সমস্ত কিছু বিচার করা হয়। যে জাতকের জন্ম কুষ্ঠি তে তৃতীয় ভাব দুর্বল হয়ে পড়বে সেই মানুষ সমাজ এবং পরিবেশের সাথে লড়াই করে বেঁচে থাকতে পারবে না।

চেঙ্গিস খান জন্মগ্রহণ করার পর থেকেই সমাজ এবং প্রকৃতির সাথে প্রতিমুহূর্তে লড়াই করে বেঁচে ছিলেন, এটা কোন সহজ পথ ছিল না এবং তাকে সাহায্য করার মতন কেউ ছিলনা।

পিতার হত্যার পর মাত্র 13 বছর বয়স থেকে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, মঙ্গলের দশায় জন্ম হয়েছিল চেঙ্গিস খানের রাহুর দশায় নিজেকে প্রতিস্ঠিত করতে শুরু করেছিল। চেঙ্গিস খানের জন্ম কুষ্ঠি তে সাতটি গ্রহ তৃতীয় ভাবে অবস্থান করছিল এবং দশমে রাহু আর চতুর্থে কেতু। রাহু এমন একটা গ্রহ যাহা দশম অবস্থান করলে একই কাজ বারবার করা হয়। 13 বছর বয়স থেকে চেঙ্গিস খান যুদ্ধ করা শুরু করেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত যুদ্ধ করেছিলেন।

তৃতীয় ভাব, যে মানুষের শক্তিশালী হবে সেই মানুষ প্রচন্ড সাহসী হবে, তার মাথার মধ্যে সব সময় কিছু না কিছু করার জন্য প্ল্যানিং হতে থাকবে। আমার আর্টিকেল যারা পড়ছেন তারা শুধু শ্রীকৃষ্ণের জীবনের কথা ভেবে দেখুন, জন্মানোর পর থেকেই শিশু অবস্থায় যুদ্ধ শুরু করেছিল বিভিন্ন রাক্ষস এবং কংসের বিরুদ্ধে, শৈশব কাল থেকেই সমস্ত পৃথিবী জেনে গিয়েছিলেন শ্রীকৃষ্ণ এক মহান যোদ্ধা। সম্পূর্ণ মহাভারতের যুদ্ধ উনি না থাকলে হয়তো হতো না। শ্রীকৃষ্ণের জন্ম কুষ্ঠি তে তৃতীয় ভাবে রাহু মঙ্গল এবং শুক্রের অবস্থান কর্কট রাশিতে।

যেসকল জ্যোতিষ অনুরাগী আমার এই আর্টিকেল পড়ছেন অথবা যে সকল জ্যোতিষী আমার এই মুহূর্তে তাদেরকেও একটা ঘটনা অবগত করি বর্তমান জ্যোতিষ সমাজে কিছু সংখ্যক জ্যোতিষী মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তাদের প্রতিদিনের পরিকল্পনা তাদের জীবনের উন্নতির সিরি একটার পর একটা সাহসী পদক্ষেপে উপরে উঠে চলেছেন তাদের সকলের তৃতীয় ভাব ভীষণ শক্তিশালী।

এই শক্তিশালী মানুষগুলোর মানসিকতা এমন হয় তারা মনে মনে ভাবেন “হয় পোষ মানো, না হয় বশ মানো। কথার তাৎপর্য হলো যদি আপনি এদের কাছে ভালবেসে থাকেন তাহলে এনারা আপনাকে শরণার্থী করবে, না হলে জোর করে বশ মানাবে।

চেঙ্গিস খান মৃত্যুর সময় পীত সাগর থেকে শুরু করে ইরান, ইরাক, এবং দক্ষিণ রাশিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল তার সাম্রাজ্য। অল্প সময়ের মধ্যেই মঙ্গোলিয়ার সবগুলো ছোট-বড় গোত্রকে একত্রীভূত করে বৃহত্তর মঙ্গোলিয়ার পত্তন ঘটান তিনি। এই তথ্য-প্রযুক্তির অবাধ প্রবাহের যুগও পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষ তাকে চেনে অন্যতম একজন নৃশংস যুদ্ধবাজ নেতা হিসাবে। এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নাই যে চেঙ্গীস খান বহু নৃশংস ঘটনা ঘটিয়েছেন তবে সেই সব নৃশংসতা ক্রুসেডারদের তুলনায় খুব বেশী কিছু যে ছিলো তা মনে হয় বলা যাবেনা।

চেঙ্গিস খানের সম্পূর্ণ জীবনটা তৃতীয় ভাবে কেন্দ্রীভূত হয়েছিল, একটা ঘরে সাতটি গ্রহের অবস্থান তৃতীয় ভাবকে অতিরিক্ত শক্তিশালী করেছিলেন। সাবকনসাস মাইন্ড তৃতীয়বার থেকে বিচার করা হয়, এই সকল মানুষ প্রচুর চিন্তাভাবনা করে, প্লানিং করে, প্রতিটা মুহূর্ত কিছু না কিছু আবিষ্কারের পেছনে দৌড়ায়, জীবনের নতুনত্ব চিন্তাভাবনার কল্পনাকে বাস্তবায়ন করার জন্য প্রকল্প গ্রহণ করে।

চেঙ্গিস খানের জীবনের ঘটনাবলী নির্মোহ ভাবে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে তিনি খুব সহজেই আধুনিক নৈতিকতার মানদন্ডে উত্তীর্ণ হয়ে পরিচিতি পেতে পারেন একজন মহান মানুষ হিসাবে। একবার তার শাসনের আওতায় যারা এসেছে তারা অন্য যে কোন স্থানের তুলনায় অনেক বেশী নিরাপদ, প্রগতিশীল, এবং স্বাধীন ছিলো। পৃথিবীর অন্যতম দূরদর্শী নেতা হিসাবে চেঙ্গীস তার শাসনামলে একটি দেশ, একটি ভাষা, ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক স্বাধীনতা, পোস্ট অফিস, লিখিত আইন ব্যবস্থা, টোল রোডের নেটওয়ার্ক সহ অন্যান্য আরও অনেক নতুন জিনিষের গোড়াপত্তন কিংবা প্রচলন শুরু করেন।
The Sky has ordered me to govern all peoples. With protection of the everlasting Sky I defeated Keraits and attained to supreme rank.”

চেঙ্গিস খান নিজে মনে করতেন তার জন্ম হয়েছে সমস্ত পৃথিবীর শাসনকর্তা রূপে। চেঙ্গিস খান এর মানে হল সারা পৃথিবীর শাসনকর্তা।

সম্রাট বোস

7890023700

samrat bose

Even after bagging all such degrees astrologer Samrat Bose still doing a vigorous research on “Astro Bastu” presen

https://www.samratastrology.com

Leave a Reply

Back To Top
shares